বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৫

ডিউটি ফ্রি অপারেশন্স-এর সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের নিয়ন্ত্রণাধীনে বিদেশগামী যাত্রীদের জন্য ১৯৭৫ খ্রিস্টাব্দের ১০ সেপ্টেম্বর তেজগাঁও বিমান বন্দরে প্রথম শুল্কমুক্ত বিপণী স্থাপন করা হয়। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর চালু হওয়ার পর পর্যায়ক্রমে বাণিজ্যিক প্রসারের প্রেক্ষিতে আগমন, বহির্গমন, ট্রানজিট লাউঞ্জে পৃথক পৃথকভাবে তিনটি বিপণী স্থাপন করা হয় এবং একই বিমান বন্দরে বহিরগমন ও ট্রানজিট যাত্রীসহ ফ্লাইটের জন্য অপেক্ষমান যাত্রীদের জলযোগের সুবিধার্থে ২টি স্ন্যাকস কর্নার চালু করা হয়। অপরদিকে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে বিদেশ থেকে আগত যাত্রীদের জন্য ১৯৯০ খ্রিঃ একটি শুল্কমুক্ত বিপণী (আগমন) এবং পরবর্তীতে ২০০৪ খ্রিঃ ১১ই মে শুল্কমুক্ত বিপণী (বহির্গমন) খোলা হয়। এছাড়াও চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে বিগত ০৭-০৮-২০০৩ তারিখে শুল্কমুক্ত বিপণী (বহির্গমন) চালু করা হয়। পরবর্তীতে উক্ত বিমান বন্দরে শুল্কমুক্ত বিপণী (আগমন) ও চালু করা হয়।

ডিএফও কর্তৃক পরিচালিত শুলক্তমুক্ত বিপণী ও স্ন্যাকস কর্নারসমূহঃ 
১। শুল্কমুক্ত বিপণী (বহির্গমন), হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর, ঢাকা।
২। শুল্কমু্ক্ত বিপণী(আগমন),হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর, ঢাকা।
৩। শুল্কমু্ক্ত বিপণী (ট্রানজিট) হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর, ঢাকা।
৪। শুল্কমু্ক্ত বিপণী (বহির্গমন), ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর, সিলেট।
৫। শুল্কমুক্ত বিপণী (আগমন),ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর, সিলেট।
৬। শুল্কমুক্ত বিপণী (বহির্গমন), শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর, চট্টগ্রাম।
৭। শুল্কমুক্ত বিপণী (আগমন), শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর, চট্টগ্রাম।
৮। স্ন্যাকস কর্নার (বহির্গমন),হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর, ঢাকা।
৯। ড্রিংকস কর্নার (ট্রানজিট),হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর, ঢাকা।
১০। ড্রিংকস কর্নার (৩টি), শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর, চট্টগ্রাম।


Share with :
Facebook Facebook